Categories
দেশের বাইরে দেশে

আজব এক হোটেল

চার পাশে দেওয়াল নেই, মাথার উপরে ছাদও নেই। ঘরে এসি, ফ্যান বা রুম হিটারের মতো সুযোগ, সুবিধেও নেই। আর হ্যাঁ, বাথরুমটিও নেই। তার উপরে আচমকা হাড় কাঁপানো ঠান্ডা বা বরফ পড়ার ভয়। ভাবুন তো এমন হোটেলের ঘরে থাকার জন্য প্রতি রাতের ভাড়া বাবদ আপনার কাছ থেকে যদি বাইশ হাজার টাকা দাবি করা হয়, আপনি দেবেন কি?

পৃথিবীর অনেকেই কিন্তু এই অর্থ ব্যয় করে খোলা আকাশের নীচে এমনই এক হোটেলের রুম বুক করছেন। সুইৎজারল্যান্ডের ‘নাল স্টার্ন’ হোটেলের এই অভিনব ঘরে আপনাকে স্বাগত। চারপাশে গ্রবান্ডেন পাহাড় ঘেরা এই হোটেলের ঘর গোটা বিশ্বের ভ্রমণপিপাসুদের মধ্যে সাড়া ফেলে দিয়েছে। ইতিমধ্যেই চলতি বছরের জন্য সমস্ত বুকিং হয়ে গিয়েছে। ২০১৮ সালের গ্রীষ্মে ফের বুকিং পাওয়া যাবে।

পাহাড়ের কোলে খোলা আকাশের নীচে রাত কাটানোর সুযোগই এই হোটেলের মুখ্য আকর্ষণ। হোটেলের ঘরে সাকুল্যে রয়েছে একটি বিছানা, দু’টি টেবিল ল্যাম্প। অতিথিদের সাহায্য করার জন্য একজন ওয়েটার থাকবেন। আর মনোরঞ্জনের জন্য থাকবে একটি টিভি-র খোল। যার মধ্যে থেকে মুখ বাড়িয়ে মাঝেমধ্যে আবহাওয়ার খবর জানিয়ে দেবেন ওই ওয়েটার।

সকাল এবং রাতে ‘ঘরেই’ ব্রেকফাস্ট এবং ডিনার দিয়ে যাবেন তিনি। স্থানীয় কৃষকরাই অবশ্য ওয়েটারের কাজ করেন এখানে। স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত জিনিস দিয়েই তৈরি হয় অতিথিদের খাবার। ভারতীয় মুদ্রায় হোটেলের প্রতি রাতের ভাড়া বাইশ হাজার টাকার কাছাকাছি।

কিন্তু প্রকৃতির কোলে পয়সা খরচ করে থাকলেও প্রকৃতির ডাকে তো আপনাকে সাড়া দিতেই হবে। তার জন্য পাহাড়ের কোল বেয়ে প্রায় দশ মিনিট হেঁটে একটি পাবলিক টয়লেটে আসতে হবে আপনাকে। আবহাওয়া খারাপ হলে আশ্রয় নেওয়ার জন্যও এই পাবলিক টয়লেটটি কাজে লাগতে পারে! তবে পূর্বাভাসে খারাপ আবহাওয়ার কথা জানানো হলে অল্প সময়ের নোটিসে অতিথিদের বুকিং বাতিলের সুযোগ দেওয়া হয়।

সুইৎজারল্যান্ডের দুই কনসেপ্ট আর্টিস্ট ফ্র্যাঙ্ক এবং প্যাট্রিক রিকলিনের ভাবনার ফসল এই হোটেল। এক হোটেল ব্যবসায়ীও তাঁদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন। তবে এমন অদ্ভুত হোটেল অবশ্য আগেও তৈরি করেছে নাল স্টার্ন। এর আগে একটি নিউক্লিয়ার বাঙ্কারের নীচে ছিল এই হোটেল। সেই হোটেলটি বন্ধ হয়ে গিয়ে মিউজিয়ামে পরিণত হওয়ায় পাহাড়ে চূড়োয় এই নতুন হোটেল খোলা হয়।

সুইস ভাষায় ‘নাল স্টার্ন’-এর অর্থ জিরো স্টার। অর্থাৎ, অন্যান্য ফাইভ স্টার বা সেভেন স্টার হোটেল যখন নিজেদের রেটিং বাড়িয়ে অতিথিদের কাছে আকর্ষণীয় হয়ে উঠতে চায়, সেখানে স্টার রেটিংয়ের পিছনে না ছুটে অভিনব ভাবনাতেই অন্যদের পিছনে ফেলতে চায় ‘নাল স্টার্ন’।

একটি আন্তর্জাতিক ট্রাভেল ওয়েবসাইটের দাবি অনুযায়ী, শুরুতেই যেভাবে এই হোটেল জনপ্রিয় হয়েছে, তাতে সুইস আল্পসের বিভিন্ন অংশে এমনই আরও ২৫টি হোটেলের ঘর খোলার কথা বিবেচনা করছেন হোটেল ব্যবসায়ীরা!