ছোটাছুটি

এই বালিতে চোখ জুড়ায়

বালিতে চোখ কচকচ! না, ঈশ্বর বলুন বা প্রকৃতি, এমন এক বালি উপহার দিয়েছে আমাদের, যেখানে চোখ জুড়ায়। কী এক প্রশান্তি এনে দেয়। প্রকৃতি যে কত সুন্দর, তা নতুন করে উপলব্ধি হয়। খুব বেশি দূরেও কিন্তু নয়। যদি সাধ্য থাকে একবার ঘুরে আসতে পারেন বালি দ্বীপ থেকে

ইন্দোনেশিয়া অর্থাৎ দ্বীপের দেশ।  অনেকেই হয়তো জানেন না যে গোটা দেশটি জুড়ে রয়েছে ১৭,০০০ -এরও বেশি দ্বীপ। আর ইন্দোনেশিয়ার কথা বললে, প্রথমেই যে জায়গার কথা মনে পড়ে, সেটি হল বালি। কেন না বালির প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য, পরিবেশ, এখানকার মন্দির, অধিবাসী, তাঁদের সংস্কৃতি ও জীবনপদ্ধতি মানুষকে বিশেষভাবে আকর্ষণ করে। মূলত ১৯৮০-এর পরে থেকে এই এলাকার চেহারাটাই পাল্টে যায়। বর্তমানে এখানে সারা বছর ধরেই এত পর্যটক আসে যে এই এলাকা ইন্দোনেশিয়ার সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক এলাকায় পরিণত হয়েছে।

বালি সাগরের ঠিক কোল ঘেঁষে যেন স্বমহিমায় বিরাজ করছে এই দ্বীপ। দ্বীপটির আয়তন প্রায় ৫,৭৮০ বর্গ কিলোমিটার। জনসংখ্যা প্রায় ৪২ লক্ষের কাছাকাছি। দ্বীপটির সৌন্দর্য্যতাই বার বার মানুষকে এখানে টেনে আনে।

সমুদ্র যারা ভালবাসেন, তাঁদের কাছে বালির বিকল্প খুঁজে পাওয়া মুশকিল। ওয়াটার অ্যাডভেঞ্চারের অন্যতম সেরা ঠিকানা এই বালি। গোটা দ্বীপ জুড়ে প্রায় ২৮০-রও বেশি প্রজাতির পাখি দেখা যায়।  আপনার ভাগ্য ভাল থাকলে আপনি বিরল প্রজাতির বেশ কিছু পাখির চাক্ষুষ দর্শন করতে পারেন। এর সঙ্গে বালির সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য তো রয়েছেই। এখানকার স্থাপত্য, মন্দির, শিল্পকলাগুলি এক কথায় অসামান্য।

চলুন দেখেনি, বালি ভ্রমণে এলে আপনি ঠিক কী কী চমক আপনার জন্য অপেক্ষা করছে।

তানাহ লট মন্দির

কুটা থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই মন্দিরটি বালির সবথেকে সুন্দর মন্দির। ছোট্ট একটি পাহাড়ের উপর অবস্থিত এই মন্দিরটির বয়স প্রায় দেড় হাজার বছর। বালির বহু ইতিহাসের সাক্ষী এই  মন্দিরটি। মন্দিরটিকে ঘিরে রয়েছে সমুদ্র। সমুদ্রের প্রতিটা ঢেউ এসে এই মন্দিরটিকে ছুঁয়ে যায়।

উলুয়াতু মন্দির
উলুয়াতু হচ্ছে বালির অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র। স্থানটির প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য, প্রশান্তিকর পরিবেশ এবং নানারকমের বিচিত্রানুষ্ঠানের কারণে এটি পর্যটকদের অন্যতম একটি প্রধান আকর্ষণ হয়ে উঠেছে। সমুদ্রের বুকে খাড়া উঁচু পাহাড়ের উপর দাঁড়িয়ে রয়েছে এগারো শতকের সাক্ষী বহনকারী পুরনো একটি মন্দির। প্রাচীন স্থাপত্যশৈলীকে ধরে রাখা এই মন্দিরটি বুকিট উপদ্বীপে অবস্থিত। বালি সমুদ্রের পাশে অবস্থিত মন্দিরগুলির মধ্যে এটি হল অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মন্দির। মন্দির গৃহের উপরে সূর্যাস্তের দৃশ্য কখনও ভোলার নয়।

বিশাখী মন্দির
আগুং পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত এই মন্দিরটিও পর্যটদের ভীষণভাবে আকর্ষণ করে। বালির মন্দির মধ্যে এই মন্দিরটিই সবথেকে বড় মন্দির। মন্দিরটি ‘মাদার টেম্পল’ নামেও খ্যাত। মোট তিনটি ভাগে বিভক্ত এই মন্দিরটি। ব্রহ্মা, বিষ্ণু এবং শিব এই তিন দেবতারই পুজো হয় এখানে। মন্দিরটি হিন্দু মন্দির হলেও যে কোনও ধর্মের মানুষ এই মন্দিরে প্রবেশ করতে ও পুজো দিতে পারেন।

উবুদ
বালির দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত উবুদ হল বালির সংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র। বালি ভ্রমণে এলে উবুদ-এ আপনাকে আসতেই হবে। প্রথমেই বলা যাক তেগালালাং রাইস টেরেসের কথা। রাস্তার ডান পাশের খাড়া পাহাড়গুলো কেটে ধানক্ষেত বানানো হয়েছে। একে রাইস টেরেস-ও বলা হয়। এছাড়া মাঙ্কি ফরেস্ট এবং আর্ট মার্কেট তো রয়েছেই। যেখানে ভিড় জমান পর্যটকরা।

বালি সাফারি ও মেরিন পার্ক
বালি সাফারি ও মেরিন পার্ক  হল ইন্দোনেশিয়ার সবথেকে বড় প্রাণী থিম পার্ক। ৬০টি-রও বেশি প্রজাতির প্রাণী এই পার্কে লক্ষ্য করা যায়। শুধু তাই নয়, এখানকার অ্যাকোরিয়ামে রয়েছে বিভিন্ন বিরল প্রজাতির মাছও। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ ভিড় জমান এখানে।

বাতুর পাহাড়

বালির মন্দির এবং সমুদ্র, পর্যটকদের নজর কাড়লেও এখানকার পাহাড়গুলিও কিছু কম যায় না। বাতুর পাহাড় যার মধ্যে অন্যতম। বাতুর-কে সামনে থেকে দেখার অর্থই হল এক অসাধারণ অভিজ্ঞতার সাক্ষী থাকা। বাতুর হল জীবন্ত আগ্নেয়গিরি। ১৮০০ সাল থেকে মোট ২৪ বার এই পাহাড়ে অগ্ন্যুৎপাত হয়েছে। আর প্রতিবার বদলে গিয়েছে বাতুরের পারিপার্শ্বিক পরিবেশ। বালির অন্যতম আকর্ষণ হল মাউন্ট বাতুর থেকে সূর্যোদয় দেখা।

 

গোয়া গাজাহ
নবম শতাব্দীতে নির্মিত, বালি দ্বীপের এই গুহাটিও অন্যতম সেরা পর্যটন স্থান।  তবে গুহাটি দেখতে আর দশটি সাধারণ গুহার মতো নয়। গুহার প্রবেশপথটি দেখলে মনে হবে, ভয়ংকর কোনো দানব মুখ হাঁ করে বসে আছে। এটিকে ‘এলিফ্যান্ট গুহাও’ বলা হয়। ১৯৯৫ সালে ইউনেস্কো সাংস্কৃতিক বিভাগে বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে এই গুহাটিকে অন্তর্ভুক্ত করেন।

Facebook Twitter Google+ Pinterest
More
Reddit LinkedIn Vk Tumblr Mail
Facebook